Black

আমার পৃথিবী / Amar Prithibi Full Album Lyrics

( Black Bangladeshi Band )


[Track-1]
আমরা / Amra Lyrics by Black
কন্ঠঃ জন
কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

দু’জনকে আজ মনে হয় দু-গ্রহের।
তোমার জীবনের স্রোত ভীষণ পৃথক
ছুটে যেতে চাই দূরে
অথচ তোমাকে এড়াতে পারিনা

তবু খুঁজি জীবনের এই সময়ে
ভাবি তোমার স্পর্শে সুখি হব
অথচ ঐ চোখে ঘৃণার আগুন দেখে
লুকাতে চাই অদৃশ্য পাখির মত..  আমি

কখন সময় হবে দূরত্ব বাড়াবার?
আমি এসবের শেষ কথা জানি!
কখনও সে আলোয় মুখোমুখি হলে
কেউ কারও মুখ চিনবে না

তবু খুঁজি জীবনের এই সময়ে
ভাবি তোমার স্পর্শে সুখি হব
অথচ ঐ চোখে ঘৃণার আগুন দেখে
লুকাতে চাই অদৃশ্য পাখির মত

[Track-2]

অভিমান / Obiman lyrics by Black

কন্ঠঃ জন কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

স্বগত লগ্নে জমাট স্তব্ধতা
ঘুম পেলে ক্ষতি কি?
তোমার চোখে গভীর বিশ্বাস
হারালে ক্ষতি কি?

কেবলই অভিমানের রাত
তবে কেন প্রতীক্ষা?
ক্ষয়া চোখে ভুলের বিন্যাস
নিভু স্বপ্নবাতিটা

আমাকে তুমি জাগিয়ে
একা কেন ঘুমালে?
আমাকে এড়িয়ে তোমার আকাশে
কবে ফুল ঝরেছে বলো?

তোমার চারুগৃহ কেন যে খুলে যায়
দেয়ালে মাথা কোটে ধূসর আঁধার
দু’চোখ অন্ধের উপড়ে ফেলো তুমি
মাতাল ভাঁড় হোক সঙ্গী তার

আমাকে তুমি জাগিয়ে
একা কেন ঘুমালে?
আমাকে এড়িয়ে তোমার আকাশে
কবে ফুল ঝরেছে বলো?

[Track-3]

আমার পৃথিবী / Amar Prithibi lyrics by Black

কন্ঠঃ জন/তাহসান

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

তবলাঃ জাহান

সেতারঃ জাহান

ছায়ারা সরে যাবে, জানি সূর্য উঠবে
মৃত সব গাছের নিচে আগুন জ্বলবে
বুকের গভীরে নদী, কুয়াশা কুয়াশা
পাথরের উপর বসে দেখছি এ সবই

তাকিয়ে আছে মৃত্যুর এপারে
জীবনের সুতীব্র উল্লাস দেখি আমি
সাদা রোদে ভাসছে সবই

পায়ে পায়ে ফিরে আসি
নিভৃতে বুনি দুঃখের গান
অনন্ত আগুনে পোড়ে অনিদ্র চোখ
আমার বিবেক পোড়ে সূর্যের নিচে

তাকিয়ে আছে মৃত্যুর এপারে
জীবনের সুতীব্র উল্লাস দেখি আমি
সাদা রোদে ভাসছে সবই

[Track-4]

কবর / Kobor Lyrics by Black

কন্ঠঃ জন

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

অমন আঁধার সিঁড়ি নেমে আসে নীচে
সিমেন্ট মেঝের ওপর চাঁদের চিৎকার
ছায়া পড়ে নীল ছায়া পড়ে লাল
বাতাসের ঘূর্ণিতে মেয়েলি প্রলাপ বলে-
“চিৎকার করে কি চাও তুমি?”
উত্তর নেই, সব চুপচাপ
বাতাসে কাঁপে ঘাস
চাঁদের ইঙ্গিত ওপরে
লাল নীল মেঘ
সামান্য বিস্ময় প্রকাশে
মৃত চিল ও শেষ ডানা
অপরাপর লেনদেন আর সবকিছু শেষ
এসব মুগ্ধ হল কাল্পনিক ডানার উষ্ণতায়
চিৎকার করে বল তুমি
সবশেষে সেই নীল লাল
স্বর্গের অদৃশ্য সিঁড়ি
শেষ রাতে মৃত্যুর পর
মৃত গাছের নীচে- কবর।

[Track-5]

বিক্ষত / Bikkhotoh Lyrics by Black

কন্ঠঃ জন

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

যে পথ গিয়েছে ঘুরে
সেখানে দাঁড়িয়ে সে
একা এই সময়ে
শূন্য এই জগতে
বিক্ষত সবাই আজ।

রাতের গলিত শ্বাসে
ক্রমশ ডুবেছে সে
অবলীলায় পার হয়ে যায়
শোকের ব্যাপক চরাচর
বিক্ষত সবাই আজ।

 

[Track-6]

প্রার্থনাদ / Parthonad Lyrics by Black

কন্ঠঃ তাহসান

কথাঃ তাহসান

আমার এ জীবনটাকে আমি
বুঝতে পেরেও বুঝে উঠিনি
আমি কি তোমার তুলির আঁচড় শুধু
তোমার রঙের খোরাক শুধু?

আর লাল রঙের তুলিতে রাঙিও না আমার জীবন
আমার আঁকা স্বপ্নগুলো ছিড়ে ফেলে দুঃস্বপ্ন আর এঁকো না।

চাইনা ঘৃণা করতে তোমাকে
চাই শুধু তোমাকে প্রার্থনায় আমি

পুরোনো চাদর পশ্চিমে
বিছিয়ে আমি একা বসে
তোমার তরে আমার প্রার্থনা
তোমার তরে আমার আর্তনাদ
আর লাল রঙের তুলিতে রাঙিও না আমার জীবন
আমার আঁকা স্বপ্নগুলো ছিড়ে ফেলে দুঃস্বপ্ন আর এঁকো না।
চাইনা ঘৃণা করতে তোমাকে
চাই শুধু তোমাকে প্রার্থনায় আমি

[Track-7]

এখনও / Ekhono Lyrics by Black

কন্ঠঃ তাহসান

R-8 সংযোজনঃ আদনান খান

আমার এই আঁধার আমার কবিতা
সময়ের পাতায় যা লিখে চলি
ছিল সবই তোমারই আছে আজও তোমার
আঁধারের নির্জনতায়।

এই নিঝুম রাতে একা আমি
জানালার পাশে দাঁড়িয়ে
চিৎকার করে বলতে চাই তোমায় আমি
ভালোবাসি, শুধু তোমায় ভালোবাসি
এখনও শুধু তোমায় ভালবাসি।

আমার এই ভোরের আলোয় ছুটে চলা
শুধুই কল্পনায় ছুঁতে চাওয়া
তুমি রাতের আঁধার ঘিরে এলে
তুমি আমার ভোরের আলোয় পাওয়া,
অন্তহীন এ পথে

এই ভোরের স্তব্ধতা ভেঙ্গে দিয়ে
লাল আকাশে চির ধরিয়ে
চিৎকার করে বলতে চাই তোমায় আমি
ভালোবাসি, শুধু তোমায় ভালোবাসি
এখনও শুধু তোমায় ভালবাসি।

[Track-8]

কোথায় / Kothai Lyrics By Black

কন্ঠঃ জন

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

শহর ছাড়িয়ে দূরে, আরও দূরে …
লাল মাটির বুনো পথ,
তোমার চিহ্ন পাব?

আমি তো খুঁজছি কিছু মানবিক বোধ!

বৃষ্টিতে ধুয়ে যাক পাথর-ঘর,
রাত যেন নামে তার অন্ধকার নিয়ে …

ফুলের জন্মে নেই তুমি, (নেই) সূর্যের মৃত্যুতেও
নেই তুমি জলে
আছ হৃদয়ে …

আমি তো খুঁজছি কিছু মানবিক বোধ!

বৃষ্টিতে ধুয়ে যাক পাথর-ঘর,
রাত যেন নামে তার অন্ধকার নিয়ে

[Track-9]

মানুষ / Manush Lyrics By Black

কন্ঠঃ তাহসান, জন

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

কারও কারও চোখে দেখি ঘৃণা
কারও বুকের গভীরে থাকে সুখ
বিপরীত এই স্রোতের পাশে বন্দি আমরা
কেবলই যুদ্ধের অয়োজন করে চলেছি।

অনেক অনেক মৃত্যুর পর শান্তি ফিরবে একদিন
ক্রমাগত ঘৃনায় পুড়ে মানুষ হবে নিষ্প্রাণ।
অনেক অনেক মৃত্যুর পর শান্তি ফিরবে একদিন..

তবুও মানুষ জানি স্বপ্নময় স্বাধীন
আর সে থাকবে না পরাধীন
মানুষ ফিরে পাবে তার ঠিকানা, তার আশ্রয়
নিয়তির বিরুদ্ধে লড়ে যায় সোনালী ফানুশ
একদিন চলে যাবে সূর্যের খুব কাছে।

[Track-10]

অন্ধকারের পাশে/ Ondhokarer Paseh Lyrics by Black

কন্ঠঃ জন

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

সময়ের হাতে বন্দী তুমি
অবক্ষয়ের প্রভাবে
দুর্বোধ্য জীবন কেবলই ইশারায় ডাকে
এভাবে ক্ষয়ে নিঃস্ব হওয়া
ঝুলে থাকা শূন্যতা
অর্থহীন ভূমিতে দাড়িয়ে
জেগে থাকা আর না।

অন্ধ চোখে হাঁটছে সবাই
বুকে জমাট পাথর সবার
এভাবে এই মিথ্যে মায়ায়
জেগে থাকা আর না।

তবু এসো ঐ আলোর অভিষেকে হই শান্ত
মিছিমিছি আঁধারের পাশে
ক্ষয়ে যাওয়া আর না।

[Track-11]

মিথ্যা / Mitha Lyrics By Black

কন্ঠঃ জন/ এলিটা

কথাঃ জুবায়ের হোসেন ইমন

সময় হ’লো এখন আমার
মুখোমুখি বসবার
বুকের কাছে প্রিয় আগুন
জ্বলে উঠবার।
তোমার সঙ্গে আমি হারিয়ে যাবো
ঘুমের দেশে লুকাব
বাতাসের দিনে হেঁটে যাবো বহুদূর।

সময় হলো এখন তোমার
আমাকে জাগাবার
ভেজা হাতে ছুঁয়ে দিও
আমার সব আর্দ্রতা।

তোমার সঙ্গে আমি হারিয়ে যাবো
ঘুমের দেশে লুকাব
বাতাসের দিনে হেঁটে যাবো বহুদূর।


উৎসবের পর / Utshober Por Full Album Lyrics


 

01. ?

এখন যুদ্ধের কথা বলে কি লাভ?

ওসব কবেকার কথা, আমরা তো জিতেই গেছি; তাহলে আমরা কি সুখী?

সেই রাতে আগুন জ্বলেছিল,

পুড়েছিল ঘুমন্ত শিশুরা, থরথর কাঁপছিল সবকিছু, সারিবদ্ধ মৃত্যুই যেন সত্য।

নিঃস্ব মানুষেরা আজও নিঃস্বই রয়ে গেল।

তাহলে ওই যুদ্ধের কি প্রয়োজন ছিল?

 

02.ও

এখন আড়ালে মুখ তোল, দেখ এখানে কেউ নেই। এখন মুখোমুখি হও, সত্যের কাছাকাছি যাও। এখন মগ্ন হতেও পার, এখন নগ্ন হতেও পার। তুমিই সবচেয়ে দুঃখী, তুমিই সবচেয়ে একা! যদিও ও বহুদূর, তাই আত্মার কাছে যাও… কেউই বুঝবে না এসব, তাই দূরে সরে যেতে পারো, সবার মাঝে শূন্যতা।

03.পরাহত

ধূলো পড়া সেই ঘর, অদৃশ্য দেয়াল তুলে দাঁড়িয়ে। ভিজে কাঠে শেওলা জমেছিল, বাতাসের শব্দ উঠত জানালায়। তোমার উষ্ণ বুকে চিহ্ন এঁকেছিলাম। আমার বলা হলো না, আমার ফেরা হলো না … ওখানে আঁধার বড় সামুদ্রিক, লোনা গন্ধ ভাসত বাতাসে। ছিল না আলো কাছাকাছি, শুধু তোমাতেই ভরেছিল ঘর।

04.ইচ্ছা

আমার প্রার্থনা এই, এই দুঃখের কাছে যেন নত না হই। নিজেকে ধরে রাখি জীবনের মাঝে। আমার প্রার্থনা এই, আবার যেন যাই জলের কিনারায়। স্বর্গের সিঁড়িটা যেন চিনতে পারি। আমার প্রার্থনা এই, পৃথিবীর সব ক্রোধ এক ঝড়ের রাতে ফেলে দিই সমুদ্রের জলের গভীরে।

05.অনুক্ষণ

রাত ফুরোলেই স্বপ্নটা ভেঙ্গে যাবে। জানালার বাইরে এসে দাঁড়াবে ভোর। ভোরের বাতাসে মুছবে কি দুঃখ? কেউ বলে দিবে একা থাকার মানে? দুরন্ত বাতাসের ভেতর হাঁটছি আমি রোদে, কোথাও পাইনা খুঁজে পরিচিত কোন মুখ। ক্লান্ত বিকেলে শুই ঘাসের ওপর, এখনি বৃষ্টি ঝরবে আকাশ থেকে। তারপর আবার নিঃসঙ্গ রাত, রাত ভর বৃষ্টির শব্দে ডুবে যেতেও পারি। আমার ভেতরে এক নিঃসঙ্গ মানুষ, নিঃশব্দে কেঁদে ওঠে বৃষ্টির রাত শেষে।

06.উৎসবের পর

এখানে এসে দাঁড়ালে মনে পড়ে যাবে? বুকের ভেতরে হাওয়া ঘুরে উঠবে আবার! এখন রাস্তায় জমে আছে শুকনো পাতা, দিয়েছে ঢেকে হারানো পায়ের ছাপ.. সে দিনের উৎসবের আলোয় অজস্র মুখ, হৃদয়ে শান্তির নীল স্রোত বইছিল? একাকী অন্য জীবনে কেউ হারিয়ে যাচ্ছিল, হারিয়ে যাবার আগে শেষবার দেখছিল; তারপর দীর্ঘদিন ঘুমে অচেতন, কে যেন ডাক দিল আবার ফিরে যেতে। সে দিনের উৎসবের আলোয় অজস্র মুখ, হৃদয়ে শান্তির নীল স্রোত বইছিল? এখন ফিরে এসেছ সে। দু’পাশে আলোর মতন ফুটছিল এক মুখ!

07.অপমিত

আমাকে খুঁজতে তুমি কোথও যেতে চাও? আমি বৃষ্টির মাঠে নগ্ন একা ভিজি.. ডানা ঝাপটানো পাখির গন্ধে, আমার দু’পাশে বুনো ফুলের মৌতাত। আমার দু’চোখে গাঢ় কুয়াশার ঘোর, তবুও তোমার কাব্য এখনও দু’হাতে ধরা। জলের স্রোতের পাশে ঘুমিয়ে পড়েছি আমি, পাতা ঝরে ঢেকে দিয়ে গেল আমায়। তবুও খুঁজবে লোকালয়ে একা? তুমি ওখানে পাবে না আমায়। একটি পাথর সরালেও পাবে তুমি, তোমার বুকের মাঝে আমায়।

08.একই রকম

এই সেই দুঃসময়, সমান্তরালে আমি। বহুদূরে তুমি, ধূসর ধূসর.. তবু ভালো লাগে, জীবন ও রোদ, মায়াবীর ক্রোধ, ঐ নীল জলস্রোত.. যেভাবে চলে যায়, ফিরেও আসে। আমি এ সবই দেখি একা বসে থেকে।

09.এই ছায়াপথে

ছায়াপথ ছেড়ে এখানে এসেছি, অথবা ছায়াপথেই রয়েছি যেন। এখানে পথের দু’ধারে ফোটে ফুল, যেখানে মেয়েটি কাঁদছে লুকিয়ে। শেষ রাতের পথে ঘুরে কবিদের ম্লান মুখ দেখি। ভালোবাসার খুব কাছেই ভালোবাসার মৃতদেহ..  ছায়াপথে এত আঁধার দেখিনি। এখানে শীতার্ত রাতে শিশুর মৃত্যু। কবির বিমর্ষ চোখে দেখি সূর্যোদয়, সূর্যটা যদিও প্রাচীন আকাশেই স্থির। শেষ রাতের পথে ঘুরে কবিদের ম্লান মুখ দেখি। ভালোবাসার খুব কাছেই ভালোবাসার মৃতদেহ.. এখানেই স্বপ্নের মৃত্যু, এখানেই ক্ষয়ে যেতে হয়। মানুষ তাকিয়ে থাকে অর্থহীন নীল শূন্যতায়।

10.রুদ্ধবোধ

দেয়ালে ঠেকেছে পিঠ, দৃষ্টির পথে ঘুরছিল কেউ। খুব কাছেই ভয়াবহ স্মৃতি, পালকে রক্তের দাগ দেখি.. সময় বিরূপ হলে এমন হতেও তো পারে, ছায়া ঘনীভূত হয়ে পাথর হয়েছে.. তবু কথা কিছু আশেপাশে থাকে, এবার তেমন কিছু হতেও কি পারে?

11.শ্লোক

আমাদের যেখানে যেতে ইচ্ছে করে, সেই স্বপ্নটা মুছে দিলে কেউ মুখোশ পরবে না। নিজের ছায়ার বাইরে যাওয়া যায় না, এটা মেনে নিলে নির্ঘুম রাত কাটবে না।

কার জলে ভাসাতে গেলে ফুল? কার চোখে হয়েছ নিঃস্ব? কেন স্বীকার কর, দুঃখ চেতনার মূল?

তোমার ক্যানভাসের ওই নীল আর সাদা। অস্তিত্বে বিঁধে থাকে বিপর্যস্ত স্মৃতি। এসবই পেয়ে যাবে অন্য দিনের কেউ। তবুও আজ রাতে যেতে যাও জ্যোৎস্নার বনে?

12.৬ই সেপ্টেম্বর

যদি বলি তুমি সব তবে মিথ্যে বলা হয়। তোমাকে আমি কে ন চিনতে পারিনি? দু’চোকের আলোয় কখনও ভাসিনি। অথচ কিসের টানে জড়াই এষানে? আমি এখন মগ্ন আলোকিত আঁধারে, তোমার স্বরূপ বুঝে শিহরিত.. তবুও আমি ওই ক্ষুব্ধ চোখে নিজেকে মৃত ভাবি না.. সাদা মেঘে ভেসে ওঠে তোমার ওই মুখ। দূরে অপসৃয়মান ছায়ার মতন তুমি ক্রমশ যাচ্ছো হারিয়ে কোথায়? তোমার উষ্ণতার কাছে দাঁড়িয়ে আমি..

13.মিছিমিছি

তুমি নেই এটাই একমাত্র সত্য, অন্য সত্যেরাও আছে। আমিও তাই মিছিমিছি আছি। এই লুকোচুরি খেলা মুখোশ জগতে। তুমিও চেয়েছিলে পাথরে ফুল ফোটাতে। এখন মাঝরাত, দুঃখী বালক কাঁদে। তবুও হাঁটছে দ্যাখো শীতার্ত পথে।

14.প্রাকৃতিক

বাতাসে ফুলের সৌরভ, পাতা ঝরেছে। শীত আসবে বলে পৃথিবী ঘুমিয়ে পড়েছে। শীর্ণ নদীর বুকে আজও ওঠে ঢেউ, আমি ম্লান চোখে তাই চেয়ে চেয়ে দেখি। আকাশের নীল কখনও কি নিভে যেতে পারে? পাখিরা হারাতে পারে পথের নির্দেশ কোন দিন? এ পৃথিবী কখনও কি মানুষ হারাবে? গভীর অন্ধকারে ডুবে যেতেও পারে!

15.একা

আকাশ তুমি বুঝেছ কি? হারিয়েছ তুমি সকল বাতাস। সূর্য জেনেছ কি? অন্ধকারে তুমি একা..

ছেলে, পেছনে ফিরে দ্যাখো ছায়া নেই মেঝেতে তোমার। তুমি একা। সময় জানতে চাওনি কখনও, তুমি কতটা শীতল। বিকেল, জেনে নাও তুমি, তোমার ভেতরে বৃষ্টি ঝরে। মেয়ে, পেছনে ফিরে দ্যাখো, তুমিও একা কি না? তুমি একা।

16.বিমূর্ত

তোমার উত্তাপ মিলিয়ে যাচ্ছে দ্রুত। আমি ক্রমশ আঁধারে আলো অথবা বিপরীত দৃশ্যটাও সত্য.. হঠাৎ আলোর  উৎসে শব্দ শুনে ঝুঁকে দেখি..; সময় তোমাকে টানছে। বিমূর্ত জগৎ থেকে আলোতে ফিরে দেখি আঁধারে অন্য আমি। তীব্র আলোর অপেক্ষায় বসে আছে।


Abar Full Album Lyrics 


মানুষ-পাখির গান (Track-1)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

 

এবার মুখোমুখি হলে কী কথা হবে?

কী মিথ্যের স্বপ্ন সাজাবে?

এর চে’ বরং দু’জনেই চুপচাপ থাকি

যেন দুটি পাখি!

 

উড়ে যাওনা কেন?

এভাবে ডানা ভেঙ্গে বসে থাকা কেন?

 

আমার ভেতরে বৃষ্টির শব্দ শুনি

বৃষ্টির রাতে পাখিরা কোথায় থাকে জান নাকি তুমি?

কোথায় লুকায় তারা?

 

 

আবার (Track-2)

( জুবায়ের হোসেন ইমন/ জন )

শীত শেষের এই ভোরে কেউ এসে দাঁড়াল কি?

আবার সে ফিরে তাকাল কি?

এই সূর্যের নিচে দাঁড়িয়ে

দেখতে চাই আমার পৃথিবীকে

দেখা হলো তো আবার অনেক কিছুর পর

শাশ্বত হোক আমাদের পৃথিবী

তাহলে ফিরে এলে যেখানে ছিলে তুমি তখন

এই সূর্যের নিচে দাঁড়িয়ে

দেখতে চাই আমার পৃথিবীকে, আবার।

 

 

 

আবহমান (Track-3)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

দিনের মধ্যে ঘর, আর ঘরের মধ্যে কে?

যারা যারা ছিল তারা কবে গেছে সরে

আরও একটা বাঁক পেরোলেই নদী

আরও একটা দিন ফুরনোর পর

পথ ফুরোলে কী দেখবি মানুষের সুখী ঘর?

ঘরের ভেতরে কান্না আর নাগরদোলার সুখ

 

 

 

 

অবশ (Track-4)

( জুবায়ের হোসেন ইমন/ জন )

কে যেন কাছে দাঁড়িয়ে ছিল, এখন নেই। নাকি এসবি স্বপ্ন?

এই পথ মিশেছে দূরের কুয়াশায়

তারপর কুয়াশার মাঠে কী এক পাখি উড়ে গেল, চলে গেল

শীতের রাতে এমন লগ্নে স্থির আমি, হাটছে পথ

শূন্যে আমি কিংবা নই

থাকা বা না-থাকার মাঝামাঝি অবশ এই অনুভূতি

ডুবে যাচ্ছি অলীক ঘোরে

 

 

 

শরবিদ্ধ (Track-5)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

আমার ছিল স্বপ্ন

ছিল অসীম আকাশ, ছিল সমুদ্র

আর ছিল আহত দু’টি হাত

এখন আমি শরবিদ্ধ

এখন আমি বড় উদ্বিগ্ন

ছিল অনেক কথা

ছিল একাধিক প্রিয় মুখ আমার

আর ছিল আহত দুটি হাত

 

 

 

 

এই গান (Track-6)

( জন )

এইদিকে এসো তুমি

এখানে বসো আবার

হাত দিয়ে চোখ ঢেকে

ভাবছো কী বল এবার

একবার বলো তুমি কেমন আছো?

হারিয়ে সব আমি সবচেয়ে ধনী

অবশিষ্ট সব আজ তোমারই

আকাশটা কেন যে নীল

সবই যখন তোমরাই বোঝ!

এর পরের লাইনে আমি

কী লিখব তোমরাই বলো

হারিয়ে সব আমি সবচেয়ে ধনী

অবশিষ্ট সব আজ তোমারই

প্রশ্ন থাকে কী পেলাম

কেন কী মনে হয় আমার এই গান?

 

 

 

 

না-থাকা জীবন (Track-7)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

কীভাবে ভোর হয়

কীভাবে ফোটে ফুল

এসব ছায়ার আড়ালে কী রয়

কেউ কি জানে?

তবু দেখি সবাই হাটছে কুয়াশার ভেতরে

কেউ কারও মুখ চিনছে না

কীভাবে জেগে থাকে কীভাবে বোঝে সব

এসব না বলা কথা কেউ যানে নিশ্চয়ই

তবু দেখি সবাই হাটছে কুয়াশার ভেতরে

কেউ কারও মুখ মুখ দেখছে না

তবু দেখি সবাই শূন্যতায়

কেমন ক্লান্ত বিষন্ন এই না-থাকা জীবনে

 

 

 

 

করুণ (Track-8)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

আরও একটা দিন

আরও একটা রাত

যেভাবে সময় কাটার কথা কাটছে

আমার রক্ত ঝরছে

হয়তো তুমি দেখছো আমাকে

আমাকে এখন কি ভীষণ করুণ দেখাচ্ছে?

আরও একটা জীবন পেলেও আমি

এভাবেই থাকব এভাবেই ভেসে যাব

আমার স্বপ্ন ভাঙ্গছে

তুমি দেখে দেখে কাঁদবে জানি

কিন্তু আমার আর কী করার আছে বলো?

আমি আমার ছায়ার বাইরে

যাই কী করে তুমি বলো?

 

 

 

 

চিহ্ন (Track-9)

( জন )

এখানেই শেষ আমাদের সব কথা, সব কিছু

বসে থেকো না এভাবে তুমি, চলে যাও এখনই

দীর্ঘকাল আমি অনিদ্র, আমি অসুখী

রেখে যাও একটা চিহ্ন, যদি পার

দীর্ঘকাল তুমি অনিদ্র, তুমি অসুখী

পৃথিবীর সব দুঃখ যখন এই গানে

তাহলে সবাই হয়তো এখন সুখী

এটা নিয়ে যাও তোমার সাথে

এটা আমার না, রেখে যাও চিহ্ন

 

 

 

 

কেন? (Track-10)

( জুবায়ের হোসেন ইমন )

নতুন অব্দে হঠাৎ শব্দে উঠি চমকে

এভাবে ঝরে ক্ষয়ে যেতে হয় কেন? কারা কারা এই দৃশ্যের পেছনে?

অবুঝ ঘরের মানুষ এত কী বোঝে এই গানের?

যারা ঝরে গেল তাদের জন্য যারা জেগে থাকে এই গান তাদের কাছে যাক


Black Full Album


01. হাত বাড়াও

ঘুম থেকে আজ উঠবো না
ঘরের বাইরে যাবো না
সূর্যকে আজ দেখবো না
আমি
আমি
আমি
আমি

যদি তুমি না হাসো
আদর করে না ডাকো
আমি কোথাও যাচ্ছি না

হাত বাড়াও
টেনে নাও
আমাকে এখনই

দেখো বাইরে অন্ধকার
নেই কোন শব্দ
এসবের কারণ তুমি
তোমার কাছে আমি
বিবর্ণ ছবির মতো এখনও আছি

হাত বাড়াও
টেনে নাও
আমাকে এখনই

02. পেপার রেডিও টিভি

তোমরা এখন যা-ই দেখছো
তোমরা এখন যা-ই শুনছো
তার কতটা যে সত্য
তুমি কি তা জানো?
তার কতটা যে সত্য
তুমি কি তা বোঝো?

সবাই আজ যা-ই করছে
সবাই আজ যা-ই ভাবছে
তার কতটা যে তোমাদের নিজের
তার কতটা যে অন্য সবার ছায়ার ওপারে

নিজেকে সবাই খোঁজে
অন্যের ছায়ায় অন্যের মাঝে
থাকবেনা তোমার কিছুই
যদি সেই ছায়া ঘিরে থাকে তোমাকে

সবাই আজ যা-ই করছে
কি করছে?
যা ভাবছে
কি ভাবছে?
যা দেখছে
কি দেখছে?

সবাই আজ যা-ই দেখছে
কি দেখছে?
যা শুনছে
কি শুনছে?
যা করছে
কি করছে?

03. আমার পৃথিবী 

ছায়ার সরে যাবে

জানি সুর্য উঠবে
মৃত সব গাছের পাতার নিচে
আগুন জ্বলবে,
বুকের গভীরে নদী
কুয়াশা কুয়াশা
পাথরের উপর বসে
দেখছি এ সবই।

তাকিয়ে আছে মৃত্যুর এপাড়ে
জীবনের সুতীব্র উল্লাস দেখি আমি
সাদা রোদে ভাসছে সবই।

পায়ে পায়ে ফিরে আসি আবার
নিভৃতে বুনি দুঃখের গান
অনন্ত আগুনে পোড়ে
অনিদ্র চোখ
আমার বিবেক পোড়ে সূর্যের নিচে।

তাকিয়ে আছে মৃত্যুর এপাড়ে
জীবনের সুতীব্র উল্লাস দেখি আমি
সাদা রোদে ভাসছে সবই।

 

04. আত্মকেন্দ্রিক

ঘড়িতে এখন কতটা বাজে?
খেয়াল করো ঘড়ির কাঁটা
এখন কোন দিকে
এই গান হয়তো তোমার
কিছু সময় কেড়ে নিবে
সময় কাড়ার আগে
কিছু বলতে চাই
আমি তোমাদের।

বাঁচো নিজেকে নিয়ে
সময় থাকে না থেমে
বিশাল আকাশের নীচে
জীবন অনেক ছোট্ট।

এই রোদ এই বৃষ্টি
সবই তোমার অর্জন,
বৃষ্টি হলে কেঁদো না
রোদ আছে অপেক্ষায়

বাঁচো নিজেকে নিয়ে
সময় থাকে না থেমে
বিশাল আকাশের নীচে
জীবন অনেক ছোট্ট।

আমি অনেক দিয়েছি অনেককে
কেড়েও নিয়েছি অনেক কিছু
সব কিছুর অঙ্ক মেলাতে গিয়ে
ফিরে এসেছি নিজের কাছে

বাঁচো নিজেকে নিয়ে
সময় থাকে না থেমে
বিশাল আকাশের নীচে
জীবন অনেক ছোট্ট।

 

05.মুমূর্ষু রূপকথা

আজ এই দিনে
কত না বলা কথা
তুমি শুনবে কি?
নাকি এড়িয়ে যাবে
এ কথা?

হয়তোবা এই জীবন
রক্তের রঙে আঁকা
এই বিরুদ্ধ সময়ের
রুদ্ধ মহাকালের
বিপর্যস্ত ইঙ্গিতের
এ কথা?

তুমি শুনবে কি?
নাকি এড়িয়ে যাবে
এই বিরুদ্ধ সময়ের
এ কথা?

06.আজও 

আমাদের আকাশে পাখিরা ওড়ে
দিক চিহ্ন হীন ভাবে
আজও…
আলো পেয়েও যেন অন্ধকারই চায়
কীসের কি অন্ধ হতাশায় সবাই
আজও…
এভাবে বেচেঁ আছি সবাই কেমন করে ?
কিছুই না বুঝে
আজও…
এখনও
কেন সবাই এরকম ?
আসো, দ্যাখো, শোনো, বোকো…

07.Nilgiri

এই দেখো না

আলোর মেলায়

পাখিদের প্রেম দুপুর বেলায়।

দু’হাতে নাও

এসব এসব তো তোমারই

দূর থেকে শোন ঝর্নারই গান

দেখো পাতার সবুজ অভিমান।

এই দেখো না

এই সন্ধ্যায় জীবনের গভীর মায়া।

দু’হাতে নাও

এসব এসব তো তোমারই

দূর থেকে শোন ঝর্নারই গান

দ্যাখো পাতার সবুজ অভিমান।

বিকেলের নরম রোদে

আমার ছায়া আকাশের তলে

ঝিরিঝিরি মৃদুস্রোত

হ্রদের জলে

বিকেলের নরম রোদে

আমার ছায়া আকাশের তলে

08.জীবনের বাঁ-পাশে

জানি না
এভাবে কে বসে থাকে ?
জীবনের বাঁ-পাশে হাঁটে।
হাঁটে আর দেখে
বায়বীয় এক সুখ
ভীষণ (গোপন) অসুখ।
এই তো সব
আর কিছু যে নেই
কেবলই শূণ্যতার ছাই
ভাসে নিরন্তর
ভাসে কেবলই বাঁ-পাশে

09.Purono Shei Din’er Kotha / Instrumental 

 

10. উপসংহার

দাঁড়িয়ে থেকো সরে যেওনা
এখানে দাঁড়ানো তোমার অধিকার
আর কিছু নেই হারাবার
জয়ী হলে সবই তোমার।
তুমি নও কারও নিয়ন্ত্রণে
প্রয়োজন নেই কারও প্রভুত্বের।
আর কোনও পথ নেই হাঁটার
একটাই পথ সব ফিরে পাবার
আমাকে বাধা দিলে তুমি,
আমাকে সরিয়ে দিলে
জীবন দেখবে তোমার উপসংহার ।

11.Ekjon

কে আমি এসব ভেবে? নির্ঘুম কাটে রাত। উত্তর নেই কেন এই প্রশ্নের… কেন? তুমি খুব ভোরে এখানে এসেছ দেখছ ম্লান আলোয় অনেক মানুষ দাড়িয়ে নির্বাক জগতে। দেখো পথ গেছে বেকে দিগন্ত অবধি যেখানে ঝড়ে চাঁদ নীল জোছনার আলো। তুমি খুব রাতে এখানে এসেছ দেখছ নিয়ন আলোয় অনেক মানুষ ঘুমিয়ে নির্বাক জগতে… কেন এই প্রশ্ন? তুমি খুব ভোরে এখানে এসেছ দেখছ ম্লান আলোয় অনেক মানুষ দাড়িয়ে নির্বাক জগতে তোমার। তুমি খুব… তুমি খুব ভোরে এখানে এসেছ দেখছ ম্লান আলোয় অনেক মানুষ দাড়িয়ে নির্বাক জগতে তোমার। তুমি খুব ভোরে এখানে…

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s