ওয়াই-ফাই

গোটা বিশ্ব এখন হাতের মুঠোয় এসে পড়েছে প্রযুক্তির এক অভাবনীয় ছোঁয়ায়। প্রযুক্তি ছাড়া আধুনিক বিশ্বে জীবন-যাপনের কথা চিন্তা করা যায় না। প্রতিনিয়ত আবিষ্কৃত হচ্ছে নতুন নতুন প্রযুক্তি। ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক-এর ধারনা মোটেই নতুন নয়। কিন্তু এই ওয়্যারলেস টেকনোলজি নিয়ে এক ভিন্নধর্মী উপস্থাপন করা হচ্ছে যা বর্তমানে আলোচিত বিষয় হিসেবে গণ্য। বর্তমানে দাম কমে আসার ফলে ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক এখন অনেকেই বাসায় স্থাপন করছেন। আসুন এখানে আমরা ওয়্যারলেস টেকনোলজির আদ্যপ্রান্ত জেনে নিই।

ওয়াই-ফাই কি?

Wi-Fi অথবা Wireless Fidelity একটি স্বাধীন নেটওয়ার্ক যা আপনাকে বাড়ীতে, হোটেল রুম, কনফারেন্স রুম সর্বত্রই তারবিহীন অবস্থায় নেটওয়ার্ক (এরিয়াভিত্তিক অথবা ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক) জগতে প্রবেশের অনুমতি দেয়। কিভাবে তা সম্ভব? এই ওয়াই-ফাই একটি ওয়্যারলেস টেকনোলজি যা সেলফোনের মতো কাজ করে। ওয়াই-ফাই যে কোন স্থানে বেইজ স্টেশনের আওতায় আপনার কম্পিউটারকে দ্রুততা সম্পন্নভাবে ডেটা আদান-প্রদানে কার্যক্ষম রাখে দ্রুতগতি সম্পন্ন ক্যাবল মডেমের তুলনায়।

আপনার কম্পিউটার একটি ওয়াই-ফাই সার্টিফাইড রেডিও(একটি পিসি কার্ড অথবা সমজাতীয় ডিভাইস)-এর সহিত কনফিগার করা হলে তা যে কোন স্থানে একটি প্রকৃত স্বাধীন কানেকশন প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবে। ওয়াই-ফাই সার্টিফিকেশন-এর অর্থ ওয়াই-ফাই সার্টিফাইড প্রোডাক্টের মাধ্যমে বাড়ীতে, অফিসে অথবা কর্পোরেট ক্যাম্পাস অথবা এয়ারপোর্ট, হোটেল, কফি শোপ এবং অন্যান্য পাবলিক এরিয়া যে কোন স্থানে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব কানেকশন পাওয়া।

ওয়াই-ফাই যা আপনাকে করতে দেয়

বাসার যে কোন স্থানে বসে আপনি আপনার ল্যাপটপ হতে ই-মেইল চেক করতে পারেন অথবা প্রয়োজনীয় তথ্য দেখে নিতে পারেন। আপনি এয়ারপোর্ট অথবা কফিশপ হতে অফিস নেটওয়ার্কে যুক্ত হতে পারেন-এটা অভাবনীয় বটে! এমনকি কর্পোরেট নেটওয়ার্ক হতে ফাইল দেখা, উপস্থাপন করা, ইন্টারনেট ব্রাউজ করা, সহকর্মীদের নিকট ইনস্ট্যান্ট ম্যাসেজ পাঠানো এবং এসবের সবই করতে পারেন কনফারেন্স রুম অথবা কোম্পানী ক্যাফটেরিয়া হতেও।  আর এটি করা সম্ভব সহজ ও দ্রুততা সম্পন্নভাবে এই ওয়্যারলেস টেকনোলজির সুবাদে। এই হচ্ছে ওয়াই-ফাই, ওয়্যারলেস টেকনোলজি।

আপনার সমগ্র অফিস স্থানান্তর ছাড়াই, নেটওয়ার্কিং ইনস্টল-এর ইনভেস্টমেন্টের কোন ঘাটতি ছাড়াই এমনকি অতিরিক্ত স্টাফ ছাড়াই ওয়াই-ফাই টেকনোলজিতে সংযুক্ত হতে পারেন।

ওয়াই-ফাই টেকনোলজি

এটি খুব শক্তিশালী। ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক রেডিও টেকনোলজি ব্যবহার করে যা IEEE 802.11b অথবা 802.11a নামে পরিচিত। এটি সিকিউর, রিলেবল যা দ্রুত ওয়ারলেস কানেক্ট করতে সক্ষম।

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের আদ্যপ্রান্ত

টেকনোলজি নির্ভর পৃথিবী দিন দিন ছোট হয়ে আসছে। আর ওয়্যারলেস জগতে প্রবেশের ফলে পৃথিবীকে আপনার হাতের মুঠোয় পেয়ে যাবেন। আপনি মোবাইল কম্পিউটটিং হতে এর সকল সুবিধা নিতে পারেন।

ওয়াই-ফাই কে ব্যবহার করতে পারবেন

বিশ্বের যে কোন স্থান হতে যে কেউ ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে পারেন। হোম ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক মাল্টিপল কম্পিউটারে একে অন্যের সহিত কানেক্ট করতে পারে। একটি ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক তার ফ্যামিলি কম্পিউটারের সহিত যেমন হার্ডওয়্যার, সফট্ওয়্যার রিসোর্স, প্রিন্টার এবং ইন্টারনেট শেয়ার করে। এর অর্থ ফ্যামিলির মধ্যে যে কেউ ফাইল, ফটো, ডকুমেন্ট এবং প্রিন্ট শেয়ার করে কোন ক্যাবল সংযোগ ছাড়াই।

হোম অথবা হোম অফিসে ওয়াই-ফাই সার্টিফাইড ইকুইপমেন্ট ব্যবহার করে এই ওয়ারলেস নেটওয়ার্ক আপনাকে হাইস্পিড ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট শেয়ার করার ক্ষমতা দেয়। একটি ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে দশটি অথবা তার অধিক কম্পিউটার সংযুক্ত হতে পারে।

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক কি করতে সক্ষম

রেডিও ব্যান্ড-এর নির্দিষ্ট ফ্রিকোয়েন্সি অনুসারে ওয়াই-ফাই ডিভাইসসমূহ একে অন্যের সহিত সিগনাল রিসিভ করে। এই কম্পোনেন্ট সরাসরি একে অন্যের সহিত কানেক্ট হয় (যাকে পেয়ার টু পেয়ার বলা যায়) একটি গেটওয়ে বা এক্সেস পয়েন্টের মাধ্যমে।

এই নেটওয়ার্কে ওয়াই-ফাই রেডিও সংযুক্ত হয় আপনার ডেস্কটপ কম্পিউটার, ল্যাপটপ এবং মোবাইল ডিভাইসসমূহ। এক্সেসপয়েন্ট অথবা গেটওয়ে বেইজ স্টেশন হিসেবে কাজ করে। এটি সিগনাল সেন্ড অথবা রিসিভ করে ওয়াই-ফাই রেডিও হতে বিভিন্ন কম্পোনেন্ট একে অন্যের সহিত ইন্টারনেটে কানেক্ট করতে।  একটি সিঙ্গেল ইন্টারনেট কানেকশনের মাধ্যমে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে সকল কম্পিউটার রিসোর্স শেয়ার অথবা ফাইল বিনিময় করে। কোন্টি প্রয়োজন পেয়ার টু পেয়ার নেটওয়ার্ক অথবা একটি বেইজ স্টেশন(একটি এক্সেস পয়েন্ট অথবা গেটওয়ে)

একটি পেয়ার টু পেয়ার নেটওয়ার্ক ওয়াই-ফাই ইকুইপমেন্টসহ কম্পিউটারসমূহ বেইজ স্টেশন ছাড়াই সংযুক্ত হতে পারে। সকল ধরণের ওয়াই-ফাই সার্টিফাইট ইকুইপমেন্ট এই ধরণের ওয়ারলেস সেটআপ সাপোর্ট করে যা কম্পিউটারসমূহের মধ্যে ডেটা ট্রান্সফারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে অথবা একটি রুমের মধ্যে কতকগুলি কম্পিউটারের মধ্যে ইন্টারনেট কানেকশন শেয়ার করতে সক্ষম। যদি সীমিত বাজেটের কথা চিন্তা করেন সেক্ষেত্রে পেয়ার টু পেয়ার ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক ভাল সলিউশন প্রদান করতে পারে। আর এতে সহজেই ইন্টারনেট শেয়ার করতে পারেন।

ল্যাপটপ, ডেস্কটপ ও পিডিএ-এর জন্য কি ধরণের ওয়াই-ফাই রেডিও অপশন

ল্যাপটপ

অনেক ল্যাপটপ কমিউটার এবং মোবাইল কম্পিউটিং ডিভাইসের মধ্যে ওয়াই-ফাই রেডিও বিল্টইন থাকছে। আর এগুলি ওয়্যারলেস অপারেটের জন্য প্রস্তুত। আবার অনেক ল্যাপটপে ওয়াই-ফাই রেডিও ইমবেডেড যা একটি পিসি কার্ডের মাধ্যমে সংযুক্ত হয়।

ডেস্কটপ

বিভিন্ন পদ্ধতিতে ডেস্কটপ কম্পিউটারে এই নেটওয়ার্ক সংযুক্ত হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে পিসি কার্ডের জন্য স্লট প্রোভাইড করে না। এর সহজতর মেথড হচ্ছে ইউএসবি ডিভাইস। এই ইউএসবি পোর্ট ডেস্কটপ কম্পিউটারের জন্য প্লাগ ইন। আপনার সিস্টেমে ইউএসবি পোর্ট না থাকলে আপনি পিসিআই অথবা আইএসএ বাস সলিউশন ইনস্টল করতে পারেন।

পিডিএ

পারসোনাল ডিজিটাল এ্যাসিস্ট্যান্ট যা পকেট পিসি নামে পরিচিত। এতে ওয়াই-ফাই রেডিও-এর জন্য কম্প্যাক্ট ফ্লাশ বিদ্যমান রয়েছে।

এক্সেস পয়েন্ট এবং গেটওয়ে-এর জন্য প্ল্যানিং

ওয়াই-ফাই এক্সেস পয়েন্ট অথবা গেটওয়ে ফাংশন নেটওয়ার্কে বেইজ স্টেশন হিসেবে কাজ করে। এটি সকল ওয়্যারলেস ক্লায়েন্ট ডিভাইসসমূহ ল্যাপটপ কম্পিউটার, পিডিএ, ডেস্কটপ কম্পিউটার এবং ওয়্যারলেস পেরিফেরালস যেমন প্রিন্টার এ সেন্ট্রাল কানেকশন প্রতিষ্ঠা করে। বেইজ স্টেশন রেডিও সিগনাল ওয়াই-ফাই রেডিও হতে ল্যাপটপ অথবা পিসিতে পাঠায় ও গ্রহণ করে এবং নেটওয়ার্কে অন্যান্য ইউজারের মধ্যে ইন্টারনেট শেয়ার করে। এক্সেস পয়েন্ট ও গেটওয়ের মধ্যে একটি ওয়াইড রেঞ্জ ফিচার এবং দক্ষতা বিরাজমান রয়েছে কিন্তু তারা সকলেই বেসিক নেটওয়ার্ক কানেকশন সার্ভিস প্রোভাইড করে।

কতজন ইউজার একটি সিঙ্গেল এক্সেস পয়েন্ট ব্যবহার করতে পারে

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে কতজন ইউজার একটি সিঙ্গেল এক্সেস পয়েন্ট ব্যবহার করে। একটি ৮০২.১১বি নেটওয়ার্ক প্রতিটি ইউজার এর জন্য ১১ এমবিপিএস ব্যান্ডউইথ প্রোভাইড করে। তত্ত্বীয়ভাবে, যদি ১০ জন ইউজার একইসময়ে এই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে তবে প্রতি ইউজার ১ এমবিপিএস অথবা এরূপ স্পিড পায়। নেটওয়ার্ক শেয়ার খুব সহজতর নয়। কারণ, এটি নির্ভর ইউজারের আচরণ বা ব্যবহারের প্রকৃতির উপর।

কতজন ইউজার নেটওয়ার্কে কানেক্ট রয়েছে এবং তারা নেটওয়ার্কে কিভাবে কাজ করছে, কিরূপ স্পিড প্রয়োজন সবকিছুর উপর এই এক্সেস পয়েন্ট নির্ভর করে।

আপনার নেটওয়ার্কের জন্য কম্পনেন্ট পছন্দ করা

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক সেটআপ করতে হলে সে অনুযায়ী কম্পনেন্ট নির্ধারণ করতে হয়।

মোট ইউজার এবং কম্পিউটার নির্ধারণ করা

অধিকাংশ বাসায় সাধারনত তিনটি কম্পিউটার থাকে, স্মল বিজনেসের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা ১৫ তে দাঁড়ায়। প্রতিটিতে একটি ওয়াই-ফাই রেডিও প্রয়োজন। কাজেই সে অনুযায়ী নির্ধারণ করুন কতটি ওয়াই-ফাই রেডিও দরকার। যদি আপনার ল্যাপটপে ওয়াই-ফাই রেডিও ইমবেডেড না থাকে সেক্ষেত্রে ওয়াই-ফাই পিসি কার্ড রেডিও-এর প্রয়োজন।

ল্যাপটপের সংখ্যা

-পিসি কার্ড

-ইন্টারনাল ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক কার্ড

ডেস্কটপ কম্পিউটারের সংখ্যা

-ইউএসবি অ্যাডাপটারের জন্য ইউএসবি জ্যাক

-পিসিআই অথবা আইএসআই অ্যাডাপটার

-পিসি কার্ড স্লট

পিডিএ-এর সংখ্যা

-পিসি কার্ড

-কম্প্যাক্ট ফ্লাশ ব্যবহার

-ওয়াই-ফাই রেডিও কম্পনেন্ট এর সর্বমোট সংখ্যা

ওয়াই-ফাই রেডিও-এর জন্য স্থান নির্বাচন

প্রতিটি কম্পিউটারের ওয়াই-ফাই রেডিও-এর জন্য স্থান নির্বাচন করুন। প্রতিটি কম্পিউটার বা কম্পনেন্টের জন্য ওয়াই-ফাই রেডিও ইনস্টল করুন যার মাধ্যমে আপনি নেটওয়ার্কে সংযুক্ত হতে পারছেন।

বেইজ স্টেশনের সংখ্যা নির্ধারণ করা

নেটওয়ার্কে সেন্ট্রাল বেইজ স্টেশন হিসেবে কাজ করার জন্য আপনার প্রয়োজন ওয়াই-ফাই এক্সেস পয়েন্ট অথবা গেটওয়ে। একটি টিপিক্যাল ওয়াই-ফাই এক্সেস পয়েন্টে ১৫ হতে ২০জন ইউজার কাজ করতে সক্ষম। খুব বৃহৎ পরিসরের নেটওয়ার্কের জন্য আপনি ডখঅঘ এ যেতে পারেন। এর বেসিক নিয়ম হচ্ছে ভিতরে ১০০ হতে ৩০০ ফুট পর্যন্ত এবং বাইরে ২০০০ ফুট পর্যন্ত। বিল্ডিং এর ধরণ অনুযায়ী এই রেঞ্জ ওঠানামা করতে পারে।

কতজন ইউজার আছে এবং তাদের কাজের ধরন

টিপিক্যাল ইউজার : (ই-মেইল পাঠানো, ইন্টারনেটে সার্চ করা এবং মাঝে মাঝে বড় ফাইল সেভ ও অপেন করা) এর জন্য সমাধান=সিঙ্গেল এক্সেস পয়েন্ট।

আরো চাহিদা সম্পন্ন ইউজার : (প্রায়ই বড় ফাইল বিনিময় করা, ভিডিও ব্যবহার করা) এর জন্য সমাধান=মাল্টিপল এক্সেস পয়েন্ট।

বৃহৎ পরিসরে : (৩০০ ফুটের উপরে একটি ওয়্যারহাউজ অথবা বৃহৎ অফিসে) এর জন্য সমাধান=মাল্টিপল এক্সেস পয়েন্ট।

মোট বেইজ স্টেশনের সংখ্যা নির্ধারণ করা।

কিভাবে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক হতে ইন্টারনেটে প্রবেশ করবেন

আপনি ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে হাইস্পিড ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন। বিভিন্ন ধরণের ইন্টারনেট কানেকশন রয়েছে, যেমন- ব্রডব্যান্ড, এডিএসএল, ওয়াইম্যাক্স প্রভৃতি। এই ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কানেকশন হতে গেটওয়ে অথবা এক্সেস পয়েন্টে কানেক্ট হতে পারেন এবং ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে তা ডিস্ট্রিবিউট করা যায়।

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক হতে কিভাবে প্রিন্টার কাজ করবে

যদি প্রিন্টার শেয়ার করতে চান তবে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে কানেক্টের মাধ্যমে প্রিন্টার শেয়ার করতে পারেন এজন্য একটি প্রিন্টার সার্ভার ঠিক করুন যার কাজ হচ্ছে নেটওয়ার্কে প্রিন্ট সার্ভিস প্রদান। একটি ওয়্যারলেস প্রিন্ট সার্ভার একটি ছোট কম্পিউটার এবং একটি সিঙ্গেল বক্সে ওয়াই-ফাই রেডিও বিল্টইন থাকে। একটি ওয়াই-ফাই প্রিন্ট সার্ভার অথবা একটি ওয়াই-ফাই ইকুইপড প্রিন্টার নেটওয়ার্ক হতে প্রিন্টার এক্সেস করতে দেয়।

নেটওয়ার্ক হতে ডিভাইসসমূহ শেয়ার করা

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে ডিভাইস শেয়ারের মাধ্যমে অর্থনৈতিকভাবে সাশ্রয়ী হতে পারেন। যেমন প্রতিটি কম্পিউটারে সব সময় নেটওয়ার্কের প্রয়োজন নেই, এক্ষেত্রে ল্যাপটপ বা পিসির পিসি কার্ড, মোবাইল কম্পিউটটিং-এর ইউএসবি রেডিও/এ্যাডাপ্টার শেয়ার করা যায়।

ইকুইপমেন্টের ধরণ

বর্তমানে দুই ধরণের ওয়াই-ফাই কম্পনেন্ট রয়েছে। বাড়ীতে বা অফিস নেটওয়ার্কে ক্লায়েন্ট মেশিনে ওয়াই-ফাই রেডিও ডিভাইস (ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, পিডিএ প্রভৃতি) এবং এক্সেস পয়েন্ট বা গেটওয়ে যা বেইজ স্টেশন হিসেবে কাজ করে।

পিসি কার্ড রেডিও

ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক একটি রেডিও ব্যান্ড ব্যবহার ছাড়াও অন্যান্য ওয়াই-ফাই এনাবলড ইকুপমেন্ট এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ক্লায়েন্ট ডিভাইস হিসেবে পিসি কার্ড ওয়াই-ফাই রেডিও। ওয়াই-ফাই পিসি কার্ডে বিল্টইন এন্টেনা থাকে।

ইউএসবি অ্যাডাপ্টার

অধিকাংশ ডেস্কটপ কম্পিউটারে ওয়াই-ফাই রেডিও-এর জন্য পিসি স্লট নেই। এ সমস্যার সমাধানে পিসিআই/আইএসএ বাস অ্যাডাপ্টার অথবা ইউএসবি অ্যাডাপ্টার ব্যবহার করা যায়।

কম্প্যাক্ট ফ্লাশ

কম্প্যাক্ট ফ্লাশ পিডিএ এবং অন্যান্য মোবাইল কম্পিউটিং এর জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এটি ওয়াই-ফাই কার্ড হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

এক্সেস পয়েন্ট এবং গেটওয়ে

কার্যকরভাবে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে একটি সেন্ট্রাল বেইজ স্টেশন প্রয়োজন যা যোগাযোগে সংযোগ সাধন করে। দুই ধরণের ওয়াই-ফাই ওয়্যারলেস বেইজ স্টেশনঃ একটি গেটওয়ে এবং অন্যটি এক্সেস পয়েন্ট।

বিশ্বে ওয়্যারলেস টেকনোলজি এখন ক্রমশঃ সম্প্রসারিত হচ্ছে। এর ফলে মানুষ তার যোগাযোগ নেটওয়ার্কে আরো বেশি গতিশীলতা আনতে পেরেছে। সম্প্রতি বাংলাদেশও এই ওয়্যারলেস টেকনোলজিতে সম্পৃক্ত হয়েছে। একটি ওয়্যারলেস ব্রডব্যান্ড কোম্পানী তাদের সার্ভিসে অতি সম্প্রতি এই নতুন প্রযুক্তি সংযোজন করেছে। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন পেশার মানুষ তার প্রফেশনাল কাজে স্মার্ট ও দক্ষতা ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। আমরা এই প্রযুক্তির সুবিধা থেকে পিছিয়ে থাকবো কেন?

উৎস: ইন্টারনেট।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s